জন্ডিস হলে কি করবেন।

জন্ডিস হলে কি করবেন?


জন্ডিস কি? কেন? লক্ষন, করনীয়,চিকিৎসা


শরীরের রক্তস্রোতে অস্বাভাবিক উপায়ে বাইল-পিগমেন্ট বা বিলিরুবিন অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ার ফলে দেহের ত্বক এবং চোখের সাদা অংশ হলুদ বর্ণ ধারণ করলে তাকে আমরা জন্ডিস বলে থাকি। বলতে গেলে জন্ডিস কোনো রোগ নয়, এটি বিভিন্ন রোগের লক্ষণমাত্র। জন্ডিসের মাত্রা বেশি হলে দেহের পা-হাত এবং শরীরেরও হলদে ভাব দেখা যায়। জন্ডিস হলে সবথেকে বেশি ক্ষতি হয় লিভার। লিভার দেহের একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এর ফলে অনেক সময় জীবননাশেরও আশঙ্কা থাকে। তাই জন্ডিস হলে দ্রুত ডাক্তার সাথে পরামর্ষ করা দরকার।

রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা বেড়ে গেলে জন্ডিস হয়ে থাকে। রক্তের মধ্যে থাকা লোহিত কণিকাগুলি স্বাভাবিক নিয়মেই ভেঙে গিয়ে বিলিরুবিন তৈরি করে, এর পরে এগুলি লিভারে প্রক্রিয়াজাত হয়ে পিত্তরসের সঙ্গে মিশে পিত্তনালির মাধ্যমে পরিপাকতন্ত্রে প্রবেশ করে।


জন্ডিসের লক্ষণঃ

কিভাবে বুঝবেন জন্ডিস হয়েছে তা নিচে আলোচনা করা হলঃ-

  • চোখের সাদা অংশ ও চামড়া হলুদ হয়ে যায়।
  • খাবারে অরুচি, বমি বমি ভাব, বমি হওয়া এবং ক্ষুদা কমে যাওয়া ও জ্বর থাকতে পারে।
  • প্রস্রাব গাঁড় হলুদ হওয়া।
  • শরীর দুর্বল এবং বিরক্তি ভাব দেখা দেওয়া।

জন্ডিস হলে যে খাবার গুলি খাওয়া দরকার।

আঁখের রস
আঁখের রস

১) আঁখের রস

আখের রস জন্ডিসের জন্য খুবি উপকারি। আখের রস ঘন ঘন প্রস্রাব হতে সাহাজ্য করে তা সাথে সাথে যকৃতের কাজকে স্বাভাবিক রাখে। এছাড়া বিলিরুবিনের মাত্রাকে নিয়ন্ত্রনে রাখে এবং পিত্তরস নিঃসরণে সহায়তা করে। তাই প্রতিদিন  ২-৩ বার ১ গ্লাস  পান করুন আখের রস। আখের রসের সাথে অল্প পরিমান  লেবুর রস মিশিয়ে নিন  উপকার  পাবেন। তবে আখের রস নিজের বাড়িতে বানিয়ে খান, রাস্তায় খাবেন না।

OnePlus 7 Smartphone Price in India, Release Date and Full Specification

লেবুর রস
লেবুর রস

২) লেবুর রস

লেবুর রস। ক্ষতিগ্রস্থ কোষের মেরামত করতে  সাহায্য করে এই  লেবুর রস। এটি শুধুমাত্র  জন্ডিস ঠিক করতে সাহায্য করবে না তার সাথে  আপনাকে সতেজ ও তরতাজা  হতেও সাহায্য করবে। দিনে  ২-৩ গ্লাস লেবুর জুস বালেবুর রস  পান করলে আপনার রোগ নিরাময়ের প্রক্রিয়ার গতি বৃদ্ধি পাবে এবং আপনার দেহের শক্তি বৃদ্ধি পাবে।

পেঁপে পাতা
পেঁপে পাতা

৩) মধু পেঁপে পাতা

পেঁপে যেমন যকৃতের সমস্যা সমাধানে কার্যকারী ভুমিকা পালন করে। ঠিক তেমনি পেঁপে পাতা এই কাজটি আরো অনেক ভাল ভাবে করতে পারে। পেঁপে পাতা পেস্ট করে, এই পেস্ট এর সাথে ১ চামচ মধু মিশিয়ে পান করুন এতে জন্ডিসের অসুস্থতা অনেকটা কমে যাবে। পেঁপে পাতার পেস্ট এর সাথে মধু যোগ করলে এর স্বাদ বৃদ্ধি পায়। তার সাথে সাথে এর উপাদান যকৃতের জন্যও খুবই উপকারী।

আনারস
আনারস

৪) আনারস

আনারস এই রোগের জন্য খুবই উপকারি। জন্ডিস রোগের জন্য আখের রস যেমন ভালো কাজ করে ঠিক তেমনি আনারসও সেই রকম ভূমিকা পালন করে। এছাড়া আনারস লিভার পরিশোধনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে।

পুদিনা পাতা
পুদিনা পাতা

৫) পুদিনা পাতা

পুদিনা পাতা সম্পর্কে আমরা সকলেই পরিচিত। লিভার এর জন্য খুবই উপকারী হচ্ছে পুদিনা পাতা। পুদিনা পাতা দিনের শুরুতে ৪ থেকে ৫ টি খেলে জন্ডিসের জন্য খুব ভালো উপকার পাওয়া যাবে। এছাড়া পুদিনা পাতার পেস্ট করে জুস বানিয়ে খেলে ভালো উপকার পাওয়া যাবে।

LG G8 Smartphone Review, Price & Full Specification.

গাজরের রস
গাজরের রস

৬) গাজরের রস

গাজরের মধ্যে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন। পুষ্টি ও ভিটামিন উপাদানে সমৃদ্ধ গাজরের জুস খুবই সুস্বাদু এবং এটি ডিটক্সিফাই হতে সাহায্য করে সাথে সাথে যকৃতকে পুনরুজ্জীবিত হতেও সহায়তা করে। জন্ডিস রোগ থেকে নিরাময় লাভ করার জন্য দিনে ১ গ্লাস গাজরের জুস পান করতে হবে।

জল
জল

৭) পরিমিত জল

জল। যদি জন্ডিস হয় তাহলে দিনে অন্তত আট থেকে দশ গ্লাস করে জল পান করতে হবে। কারন জন্ডিস একটি জল বাহিত রোগ। তাই এ সময় দেহে জলের ঘাটতি দেখা দেয়। তাই পরিমিত জল পান করলে দেহের অতিরিক্ত টক্সিন বের হয়ে যায়। ফলে লিভার সুস্থ থাকে। তাই জন্ডিসে জল এর গুরুত অপরিসীম।


লিভার

৪ টি ঘরোয়া টোটকা যা আপনার লিভার কে ভাল রাখতে সাহায্য করবে।

৪ টি অব্যর্থ ঘরোয়া টোটকা লিভার কে ভাল রাখতে কাজে লাগান। লিভারঃ- লিভার বা যকৃৎ আমাদের শরীরের একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। যা আমাদের দেহের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি করে থাকে। আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে যদি লিভার তার নিজস্ব কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলে তাহলে কি হবে। আপনার শরীরের সমস্ত ক্ষতিকারক টক্সিন শরীরেই থেকে যাবে। এর ফলে আপনার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ একে একে বিকল হতে শুরু করবে। লিভারের প্রধান কাজ হল শরীরের ক্ষতিকারক টক্সিন কে দেহ থেকে বের করা। তাই শরীরকে সুস্থ রাখতে যকৃৎ বা  লিভারের কর্মক্ষমতা স্বাভাবিক রাখা একান্ত জরুরি। আর যকৃতের কর্মক্ষমতা স্বাভাবিক তখনই নিশ্চিত করা যায়, যখন আপনার পেট পরিষ্কার থাকবে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক লিভার বা যকৃৎ সুস্থ রাখতে অত্যন্ত কার্যকর ৪ টি ঘরোয়া টোটকা। ১) পর্যাপ্ত
0 comments
এইডস

এইডস রোগের (HIV) লক্ষণ, কারন, চিকিৎসা এবং প্রতিকারের উপায়

HIV এইডস রোগের লক্ষণ, কারন, চিকিৎসা এবং প্রতিকারের উপায় HIV এইডস – এক ধরনের ভাইরাস ঘটিত রোগ। এইচ আই ভি (HIV) এক ধরনের ভাইরাস জার নাম হল Human immunodeficiency virus. এই রোগের দ্বারা আক্রান্ত মানুষকে এইচ আই ভি পজিটিভ বলা হয়ে থাকে (HIV+) । মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে অকেজো করে ফেলা হল এর প্রধান কাজ। HIv Aids এর ফলে মানব দেহে বিভিন্ন ধরনের রোগের সৃষ্টি হয়। মানব দেহের সমস্ত অঙ্গ প্রতঙ্গকে অকেজো করে ফেলে।  ২০১৮ সালের সমীক্ষা অনুযায়ী পৃথিবীর মত জনসংখ্যার ৩৮ মিলিয়ন মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে। HIV Aids।। HIV এইডস রোগের কারনঃ প্রতিদিন এই রোগ মহামারির আকার ধারন করছে। প্রতিদিন মেলামেশা ও কাজকর্ম এর মাধ্যমে, নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস, একই সাথে খাদ্য খাওয়ার মাধ্যমে, আবার যৌন মিলনের মাধ্যমে এই রোগের উৎপত্তি হয়,
0 comments
জন্ডিস

জন্ডিস হলে কি করবেন।

জন্ডিস হলে কি করবেন? জন্ডিস কি? কেন? লক্ষন, করনীয়,চিকিৎসা শরীরের রক্তস্রোতে অস্বাভাবিক উপায়ে বাইল-পিগমেন্ট বা বিলিরুবিন অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ার ফলে দেহের ত্বক এবং চোখের সাদা অংশ হলুদ বর্ণ ধারণ করলে তাকে আমরা জন্ডিস বলে থাকি। বলতে গেলে জন্ডিস কোনো রোগ নয়, এটি বিভিন্ন রোগের লক্ষণমাত্র। জন্ডিসের মাত্রা বেশি হলে দেহের পা-হাত এবং শরীরেরও হলদে ভাব দেখা যায়। জন্ডিস হলে সবথেকে বেশি ক্ষতি হয় লিভার। লিভার দেহের একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এর ফলে অনেক সময় জীবননাশেরও আশঙ্কা থাকে। তাই জন্ডিস হলে দ্রুত ডাক্তার সাথে পরামর্ষ করা দরকার। রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা বেড়ে গেলে জন্ডিস হয়ে থাকে। রক্তের মধ্যে থাকা লোহিত কণিকাগুলি স্বাভাবিক নিয়মেই ভেঙে গিয়ে বিলিরুবিন তৈরি করে, এর পরে এগুলি লিভারে প্রক্রিয়াজাত হয়ে পিত্তরসের সঙ্গে মিশে পিত্তনালির মাধ্যমে পরিপাকতন্ত্রে প্রবেশ
0 comments
কিছু খাবারের গুনাগুন

কিছু খাবারের গুনাগুন

কিছু খাবারের গুনাগুন যা আপনার জেনে রাখা প্রয়োজন। আমরা প্রতিদিন বিভিন্ন ধরণের খাবার খেয়ে থাকি। কিন্তু কোন খাবারে কি গুন তা আমাদের অনেকের জানা নেই। আমরা রোজ বিভিন্ন ধরণের শাকসবজি খায়। আর এই সব্জির মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য গুন যা আমাদের দেহে সরবরাহ হয়। আমাদের শরীরে ভিটামিন, প্রোটিন ও ফ্যাট এর প্রয়োজন হয়। আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে এই শাকসবজি। তাহলে চলুন জেনেনি কোন খাবারের কি গুনঃ- অ্যালোভেরা গাছের উপকারিতা ১) ঢেঁড়স ঢেঁড়স দেখতে অনেকটা মেয়েদের আঙ্গুলের মত তাই একে লেডি ফিঙ্গার বলা হয়ে থাকে। ঢেঁড়স এর পিছিলভাবের জন্য এই সব্জিটি অনেকে খেতে চায় না। তবে এর মধ্যে বিভিন্ন স্বাস্থ্য গুন রয়েছে। আমাদের ত্বকের জন্য ঢেঁড়স খুবই উপকারি। ঢেঁড়স দেহের রক্তস্বল্পতা দূর করতে সাহায্য
1 comment

 

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *