কিছু খাবারের গুনাগুন

কিছু খাবারের গুনাগুন যা আপনার জেনে রাখা প্রয়োজন।


আমরা প্রতিদিন বিভিন্ন ধরণের খাবার খেয়ে থাকি। কিন্তু কোন খাবারে কি গুন তা আমাদের অনেকের জানা নেই। আমরা রোজ বিভিন্ন ধরণের শাকসবজি খায়। আর এই সব্জির মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য গুন যা আমাদের দেহে সরবরাহ হয়। আমাদের শরীরে ভিটামিন, প্রোটিন ও ফ্যাট এর প্রয়োজন হয়। আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে এই শাকসবজি। তাহলে চলুন জেনেনি কোন খাবারের কি গুনঃ-



১) ঢেঁড়স

ঢেঁড়স দেখতে অনেকটা মেয়েদের আঙ্গুলের মত তাই একে লেডি ফিঙ্গার বলা হয়ে থাকে। ঢেঁড়স এর পিছিলভাবের জন্য এই সব্জিটি অনেকে খেতে চায় না। তবে এর মধ্যে বিভিন্ন স্বাস্থ্য গুন রয়েছে। আমাদের ত্বকের জন্য ঢেঁড়স খুবই উপকারি। ঢেঁড়স দেহের রক্তস্বল্পতা দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়া দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। হাড় মজবুত করতে ঢেঁড়স খুবই উপকারি।

  • ত্বকের জন্য খুবই উপকারি।
  • দেহের হাড় মজবুত করতে।
  • শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে।
  • দেহের রক্তস্বল্পতা দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।


২) বিট

বিট

বিট খেতে অনেকে পছন্দ করে আবার অনেকের অপছন্দ। কিন্তু এর স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে জানলে আপনি হয়ত চমকে যাবেন। উচ্চ রক্তচাপ কমাতে বিট খাওয়া প্রয়োজন। এর মধ্যে আছে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক, সোডিয়াম ও আয়রন সহ নানা ধরণের উপকারি উপাদান। এর রয়েছে আয়রন যা দেহের রক্তস্বল্পতা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া মেয়েদের পিরিয়ডের সমস্যা দূর করতে খুবই উপকারি। এর মধ্যে আছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে। শরীরে শক্তি জোগান দেয়। ত্বক ভাল রাখে এবং হাড় মজবুত করতে সাহায্য করে। তাই বিট খাওয়া খুবই ভাল। এছাড়া হৃদপিণ্ড ও যকৃত সুস্থ সবল রাখে।

  • ত্বক, হাড় ও দাঁত ভাল রাখে।
  • উচ্চ রক্তচাপ কমাতে।
  • হৃদপিণ্ড ও যকৃত ভাল রাখে।
  • রক্তে হিমোগ্লোবিন বৃদ্ধি করে এবং রক্ত স্বল্পতা দূর করে।

Huawei Launched New Smartphone- Huawei P30


৩) করলা

করলা

করলা নামটা শুনলেই যেন মুখ তেতো হয়ে যায়। খাবার টেবিলে বসে মেন্যুতে করলা দেখলেই মনটা অনেকের ব্যাজার হয়ে যায়। কিন্তু এই করলাতে রয়েছে প্রচুর স্বাস্থ্য গুন। করলাতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে আয়রন, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ক্যারোটিন ইত্যাদি। এই আয়রন রক্তের হিমোগ্লোবিন বৃদ্ধি করে। হাড় ও দাঁত ভাল রাকাহার জন্য ক্যালসিয়াম, ব্লাড প্রেসার ও হার্ট ভাল রাখার জন্য পটাশিয়াম দরকার যা এর মধ্যে প্রচুর রয়েছে। ক্যারোটিন দৃষ্টি শক্তির জন্য প্রয়োজন। এছাড়া এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স, ভিটামিন-সি, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক, ফসফরাস, ফলিক এসিড ইত্যাদি। তাই আজ থেকেই শুরু করুন করলা খাওয়া।

  • দেহের চর্বি ও উচ্চ রক্তচাপ কমাতে
  • চুল ও ত্বক ভাল রাখতে করলা
  • ম্যালেরিয়া রোগের জন্য খুবই উপকারি
  • দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি করতে
  • রক্তে হিমোগ্লোবিন বাড়াতে এবং রক্ত স্বল্পতা দূর করতে পারে
  • মাথা ব্যাথা কমাতে এবং তারুন্য ধরে রাখতে পারে

Vivo Y83 Pro Smartphone-Price, Best Review & Full Specifications


৪) কচুর লতি

kocu loti

আমাদের দেশে অনেক রকমের কচু পাওয়া যায়। বিশেষকদের মতে কচু এবং কচুর লতি খুবই উপকারি। অনেকেই এটি খেতে পছন্দ করে না। কচুর লতিতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমানে ভিটামিন- সি, আয়োডিন, ফাইবার, কোলেস্টেরল ইত্যাদি। এটি শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এর মধ্যে রয়েছে ফাইবার যা হজম শক্তি বৃদ্ধি করে এবং কোস্টকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে। এছাড়া চুল ও ত্বক ভাল রাখে এবং মস্তিষ্ক কেও সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

  • শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে
  • দেহের হাড়ের গঠন শক্ত করে
  • রক্তশূন্যতা দূর করতে সাহায্য করে
  • চুল ও ত্বক কে সুস্থ রাখে
  • মস্তিষ্ক কে ভাল রাখে
  • হজম শক্তি বৃদ্ধি করে
  • কোস্টকাঠিন্য দূর করে

Nokia Lowest Priced Smartphone- Nokia 2.1


৫) লাউ

লাউ

লাউ একটি গরমের সবজি। এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমানে জল, প্রায় ৯৬% তাই এটি ঠাণ্ডা। তাছাড়া এতে আছে প্রচুর পরিমানে পটাশিয়াম যা আমাদের শরীরের রক্তচাপ কে নিয়ন্ত্রনে রাখে। লাউ শরীরের ক্লান্তি দূর করে শরীর কে ঠাণ্ডা রাখে। লাউ এর মধ্যে আছে ডিটক্সিফায়ার যা শরীরের ক্ষতিকারক পদার্থকে বের করে দেয়। এর মধ্যে রয়েছে আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, ভিটামিন- বি, ভিটামিন- সি, ভিটামিন- কে, ভিটামিন- এ, ভিটামিন- ই ইত্যাদি। লাউ খেলে রাতে ঘুম ভাল হয়।

  • দেহের উচ্চ রক্তচাপ কমায়
  • এতে প্রায় সব রকম ভিটামিন আছে
  • শরীরে জলের ভারসাম্য বজায় রাখে
  • দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রন রাখে
  • রাতে ঘুম ভাল হয়
  • দেহের ক্লান্তি দূর করে দেহকে ঠাণ্ডা রাখে।

Best Mobile Under 10000 in 2019


৬) কুমড়ো

কুমড়ো

আমাদের অনেকেরই প্রিয় সবজি কুমড়ো। এটি ভাজা থেকে শুরু করে রান্না, আচার দেওয়া এমনকি মাংস রান্নাও করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরণের উপকারি উপাদান। তার মধ্যে হল ভিটামিন- এ, বি, সি, ই, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক, আয়রন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ইত্যাদি। কুমড়ো দেহের ওজন কমানোর সাথে সাথে ডায়াবেটিস ও ক্যান্সারের প্রকোপ কমাতে কার্যকারী ভুমিকা পালন করে থাকে। তাছাড়া এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ফাইবার, যা হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। তাই কুমড়ো খাওয়া শরীরের জন্য খুবই উপকারি। এছাড়া আরও বিভিন্ন ধরণের উপকার করে থাকে।

  • দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে
  • মুত্রথলির কষ্ট দূর করে
  • বৃক্ক কে সুস্থ রাখে
  • দেহের কাঁটা ছোলা দ্রুত ভাল করে
  • চোখ ভাল রাখে
  • হজম শক্তি বৃদ্ধি করে

আরও পড়ুনঃ আপনি কি জানেন পেয়ারর মধ্যে কি কি গুন লুকিয়ে আছে?


৭) টমেটো

টমেটো

টমেটো সর্বপ্রথম চাষ করা হয় আমেরিকাতে। এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন- এ, সি, ফলিক এসিড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ইত্যাদি। টমেটো মধ্যে আছে ভিটামিন- এ ও লাইকপেন যা অ্যাজমা নিয়ন্ত্রন করতে সাহায্য করে। এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ক্যালসিয়াম যা হাড় কে মজবুত করে। এছাড়া ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে টমেটো। ত্বক ও চোখের জন্যও স্বাস্থ্যকর ভিটামিন-এ। ডায়াবেটিস রোগীদের দেহে শর্করার মাত্রা বজায় রাখে এই টমেটো। তবে বেশী পরিমানে টমেটো খাওয়া শরীরের পক্ষে ভাল নয়।

  • ত্বক ও চোখ ভাল রাখে
  • ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে
  • অ্যাজমা নিয়ন্ত্রনে
  • হাড় মজবুত করে

আরও পড়ুনঃ কি কি খাবার খেলে শরীরের শক্তি বৃদ্ধি পায়!


৮) শিম

শিম

শিম  একটি জনপ্রিয় সবজি। এটি প্রধানত শীতকালিন সবজি, শীতকালে এই সব্জির চাষ হয়ে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ফাইবার, ভিটামিন, প্রোটিন, এবং মিনারেল। এটি ত্বকের জন্য খুবই উপকারি। শিমের মধ্যে আছে খনিজ পদার্থ যা চুল কে ভাল রাখে এবং চুল পড়া বন্ধ করে। এটি কোস্টকাঠিন্য রোগীদের জন্য খুব ভাল এছাড়া এটি ক্যান্সার রোধ করতে সাহায্য করে। এটি দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। পেটে পাথর হয়েছে এমন রোগীদের শিম খাওয়া খুবই ভাল।

  • দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে
  • শীতকালে ত্বক কে ভাল রাখে
  • চুল ভাল রাখে ও চুল পড়া বন্ধ করে
  • ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে

লিভার

৪ টি ঘরোয়া টোটকা যা আপনার লিভার কে ভাল রাখতে সাহায্য করবে।

৪ টি অব্যর্থ ঘরোয়া টোটকা লিভার কে ভাল রাখতে কাজে লাগান। লিভারঃ- লিভার বা যকৃৎ আমাদের শরীরের একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। যা আমাদের দেহের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ কাজটি করে থাকে। আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে যদি লিভার তার নিজস্ব কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলে তাহলে কি হবে। আপনার শরীরের সমস্ত ক্ষতিকারক টক্সিন শরীরেই থেকে যাবে। এর ফলে আপনার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ একে একে বিকল হতে শুরু করবে। লিভারের প্রধান কাজ হল শরীরের ক্ষতিকারক টক্সিন কে দেহ থেকে বের করা। তাই শরীরকে সুস্থ রাখতে যকৃৎ বা  লিভারের কর্মক্ষমতা স্বাভাবিক রাখা একান্ত জরুরি। আর যকৃতের কর্মক্ষমতা স্বাভাবিক তখনই নিশ্চিত করা যায়, যখন আপনার পেট পরিষ্কার থাকবে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক লিভার বা যকৃৎ সুস্থ রাখতে অত্যন্ত কার্যকর ৪ টি ঘরোয়া টোটকা। ১) পর্যাপ্ত
0 comments
এইডস

এইডস রোগের (HIV) লক্ষণ, কারন, চিকিৎসা এবং প্রতিকারের উপায়

HIV এইডস রোগের লক্ষণ, কারন, চিকিৎসা এবং প্রতিকারের উপায় HIV এইডস – এক ধরনের ভাইরাস ঘটিত রোগ। এইচ আই ভি (HIV) এক ধরনের ভাইরাস জার নাম হল Human immunodeficiency virus. এই রোগের দ্বারা আক্রান্ত মানুষকে এইচ আই ভি পজিটিভ বলা হয়ে থাকে (HIV+) । মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে অকেজো করে ফেলা হল এর প্রধান কাজ। HIv Aids এর ফলে মানব দেহে বিভিন্ন ধরনের রোগের সৃষ্টি হয়। মানব দেহের সমস্ত অঙ্গ প্রতঙ্গকে অকেজো করে ফেলে।  ২০১৮ সালের সমীক্ষা অনুযায়ী পৃথিবীর মত জনসংখ্যার ৩৮ মিলিয়ন মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে। HIV Aids।। HIV এইডস রোগের কারনঃ প্রতিদিন এই রোগ মহামারির আকার ধারন করছে। প্রতিদিন মেলামেশা ও কাজকর্ম এর মাধ্যমে, নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস, একই সাথে খাদ্য খাওয়ার মাধ্যমে, আবার যৌন মিলনের মাধ্যমে এই রোগের উৎপত্তি হয়,
0 comments
জন্ডিস

জন্ডিস হলে কি করবেন।

জন্ডিস হলে কি করবেন? জন্ডিস কি? কেন? লক্ষন, করনীয়,চিকিৎসা শরীরের রক্তস্রোতে অস্বাভাবিক উপায়ে বাইল-পিগমেন্ট বা বিলিরুবিন অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ার ফলে দেহের ত্বক এবং চোখের সাদা অংশ হলুদ বর্ণ ধারণ করলে তাকে আমরা জন্ডিস বলে থাকি। বলতে গেলে জন্ডিস কোনো রোগ নয়, এটি বিভিন্ন রোগের লক্ষণমাত্র। জন্ডিসের মাত্রা বেশি হলে দেহের পা-হাত এবং শরীরেরও হলদে ভাব দেখা যায়। জন্ডিস হলে সবথেকে বেশি ক্ষতি হয় লিভার। লিভার দেহের একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এর ফলে অনেক সময় জীবননাশেরও আশঙ্কা থাকে। তাই জন্ডিস হলে দ্রুত ডাক্তার সাথে পরামর্ষ করা দরকার। রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা বেড়ে গেলে জন্ডিস হয়ে থাকে। রক্তের মধ্যে থাকা লোহিত কণিকাগুলি স্বাভাবিক নিয়মেই ভেঙে গিয়ে বিলিরুবিন তৈরি করে, এর পরে এগুলি লিভারে প্রক্রিয়াজাত হয়ে পিত্তরসের সঙ্গে মিশে পিত্তনালির মাধ্যমে পরিপাকতন্ত্রে প্রবেশ
0 comments
কিছু খাবারের গুনাগুন

কিছু খাবারের গুনাগুন

কিছু খাবারের গুনাগুন যা আপনার জেনে রাখা প্রয়োজন। আমরা প্রতিদিন বিভিন্ন ধরণের খাবার খেয়ে থাকি। কিন্তু কোন খাবারে কি গুন তা আমাদের অনেকের জানা নেই। আমরা রোজ বিভিন্ন ধরণের শাকসবজি খায়। আর এই সব্জির মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য গুন যা আমাদের দেহে সরবরাহ হয়। আমাদের শরীরে ভিটামিন, প্রোটিন ও ফ্যাট এর প্রয়োজন হয়। আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে এই শাকসবজি। তাহলে চলুন জেনেনি কোন খাবারের কি গুনঃ- অ্যালোভেরা গাছের উপকারিতা ১) ঢেঁড়স ঢেঁড়স দেখতে অনেকটা মেয়েদের আঙ্গুলের মত তাই একে লেডি ফিঙ্গার বলা হয়ে থাকে। ঢেঁড়স এর পিছিলভাবের জন্য এই সব্জিটি অনেকে খেতে চায় না। তবে এর মধ্যে বিভিন্ন স্বাস্থ্য গুন রয়েছে। আমাদের ত্বকের জন্য ঢেঁড়স খুবই উপকারি। ঢেঁড়স দেহের রক্তস্বল্পতা দূর করতে সাহায্য
1 comment

One Comment

  1. Mintu December 7, 2019 Reply

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *